২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় পেল বাংলাদেশ

সাকিব-মাহমুদউল্লাহর অবিশ্বাস্য ২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয়ে কার্ডিফে আরেকটি ইতিহাস রচনা করলো বাংলাদেশ। মাত্র ৩৩ রানে চার উইকেট হারানোর পর সাকিব-মাহমুদউল্লাহর ঘুরে দাঁড়ানো রেকর্ড ২২৪ রানের পার্টনারশিপে ১৬ বল ও পাঁচ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছাল টাইগাররা। আর এরিসাথে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখলো বৃষ্টির শঙ্কা নিয়ে বাঁচামরার ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে লাল-সবুজের জার্সিধারী বাংলাদেশ টিম টাইগাররা। ২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশ

এদিকে সাকিব তাঁর ক্যারিয়ারের সপ্তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি উদযাপন করেন। আর মাহমুদউল্লাহ করেন তৃতীয়টি। বড়ো ইনিংস খেলার পর জয় থেকে ৯ রান দূরে থাকতে আউট হন সাকিব ১১৪ রান করে। অপর দিকে শতক হাঁকিয়ে জয় নিশ্চিত করেই সতীর্থদের বাঁধভাঙা উদযাপনে সিক্ত হন ১০২ রানে অপরাজিত থাকা মাহমুদউল্লাহ। ২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় পেল বাংলাদেশ

এদিকে আজ শনিবার (১০ জুন) ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে অস্ট্রেলিয়া যদি হেরে যায় তাহলে সেমিতে উঠে যাবে টিম বাংলাদেশ। বার্মিংহামের এজবাস্টনে খেলা শুরু বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায়। টানা দুই জয়ে সবার আগে শেষ চার নিশ্চিত করে ইংলিশরা।

২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশ

বাংলাদেশের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল নিউজিল্যান্ড। পয়েন্ট টেবিলে গ্রুপপর্বের তিন ম্যাচ শেষে ৩ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে মাশরাফির দল। নেট রান রেট ০.০০০। অপরদিকে বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত দুই ম্যাচ থেকে অজিদের সংগ্রহ ২।

বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ জুটির রেকর্ড গড়েন দুই সেঞ্চুরিয়ান সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আগের কীর্তিটি ছিল তামিম ইকবাল-মুশফিকের (১৭৮)। ২০১৫ সালে ঢাকায় পাকিস্তান দলের বিপক্ষে। ২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় পেল বাংলাদেশ

আরেকটি ঐতিহাসিক জয়ের মধ্য দিয়ে কার্ডিফে অপরাজিত থাকলো টাইগাররা। ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ক্রিকেট বিশ্বে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল সেই সময়ের ‘আন্ডারডগ’ বাংলাদেশ। দীর্ঘ এক যুগ পর এলো ঘুরে দাঁড়ানো আরেকটি অবিস্মরণীয় জয়। দু’টিই আবার পাঁচ উইকেটে। সেই ম্যাচটির একমাত্র সাক্ষী হয়ে আছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা জিনি আজ বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক।

২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশ

যখন দলীয় ৩৩ রানের মাথায় মুশফিকুর রহিমের (১৪) বিদায়ে চতুর্থ উইকেটের পতন ঘটে। সেখান থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে বিপর্যয় সামলে দলকে টেনে তোলেন সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

চার পেসার নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ টিম টাইগাররা। বাংলাদেশ একাদশে আনা হয় দু’টি পরিবর্তন। মেহেদী হাসানের মিরাজের জায়গায় দলে ফেরেন তাসকিন আহমেদ। অন্যদিকে, বাদ পড়েন ইমরুল কায়েস। ফেরানো হয় মোসাদ্দেক হোসেনকে।২২৪ রানের জুটিতে ঐতিহাসিক জয় পেল বাংলাদেশ
এখন শুধু অপেক্ষা সেমিতে উঠতে হলে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে হারতে হবে অস্ট্রেলিয়াকে




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *